হীরক রাণীর দেশে

হীরক রাণীর দেশে
চলতে হবে হেসে
করা যাবে না সমালোচনা
নয়ত মরতে হবে শেষে।

হীরক রাণীর দেশে
সব কিছু উলট-পালট
নির্বোধরা নেতার বেশে
ভালো মানুষেরা জেলে।

হীরক রাণীর দেশে
গরীবেরা পায়না খেতে
মন্ত্রীরা সাগাইয়ের বেশে
একটু ছুতোয় ঘুরতে যায় বিদেশে।

হীরক রাণীর দেশ
বাহ বা বাহ বা বেশ
তোষামোদেই শুরু কথা
তোষামোদেই করতে হবে শেষ।

জানতে ইচ্ছে করে

অনেক জানতে ইচ্ছে করে
বাংলাদেশ তুমি কি সেই আগের মতই আছো।।
নাকি অনেক খানি বদলে গেছো
খুব জানতে ইচ্ছে করে ।
খুব জানতে ইচ্ছে করে

এখনো কি তোমার সন্তানেরা সম্ভ্রমহানীকে ঘৃণা করে
এখনো কি ধর্ষণের বিচার চেয়ে
রাজপথে প্রতিবাদের ঝড় উঠে
তুমি কি আগের মতই আছো
নাকি অনেক খানি বদলে গেছো
খুব জানতে ইচ্ছে করে
খুব জানতে ইচ্ছে করে।

এখনো কি মানুষ নিরাপদে ফিরে ঘরে
এখনো মানুষ সোনার বাংলার স্বপ্নবুনে
এখনো কি চেতনা গুলো আগের মত আছে
বাংলাদেশ তুমি কি আগের মতই আছো
নাকি অনেক অনেক খানি বদলে গেছো
খুব জানতে ইচ্ছে করে
খুব জানতে ইচ্ছে করে

স্বৈরাচার

ফাঁসিতে টলেনা যারা
গ্রেপ্তারে করিবে কেমনে দমন?
ভালো কি হতো না? যদি-
সিংহাসনের মায়া ও প্রতিহিংসা ভুলে
কাঁধে কাঁধ মিলে দেশটি করিতে শাসন!!

চাষা বলে যদি কৃষককে দাও ছুড়ে ফেলে
রৌদ্র-বৃষ্টি ভুলে কে ফলাবে শষ্য সারা দেশ জুড়ে
প্রতিপক্ষ বলে জেল ভরো যদি নিরিহ মানুষ দিয়ে
শুধরাবে কে তোমায়, তোমার ভুলে?

তোষামোধে হও যদি অন্ধ
মিছিল মিটিংয়ে শুধু পাও গন্ধ
কোথায় যাবে বাকস্বাধীনতা
কোথায় গনতন্ত্র?

 

নো-বে-ল

যেখানে কাঁদেনা বিবেক ফুটেনা ভাষা
রাজনীতির ডামাডোলে মরে জীবনের আশা।
ত্রান নিয়ে রাজা ছুটে
নোবেলে নামটি হয় যদি তাজা।

যেখানে কাঁদেনা বিবেক ফুটেনা ভাষা
দলীয় পরিচয়ে খুনিরা পেয়ে যায় ছাড়া।
রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ তাই
নিরীহ মানুষ পাচ্ছে আজীবন সাজা।

যেখানে কাঁদেনা বিবেক ফুটেনা ভাষা
ভোটাধিকার ও মতপ্রকাশের বন্দীদশা
নোবেলে না ঘুচে যদি কষ্ট-দূর্দশা
তবে তা নিয়ে কেন এত আশা???

যদি কাঁদে বিবেক ফুটে মুখের ভাষা
জিন্দা যদি হয় মানবতাবোধ ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা
ন্যায় ও সাম্য যদি পায় প্রতিষ্ঠা
নোবেলে তখন বাড়বে মনুষ্য মর্যাদা।

 

 

 

 

 

হে প্রভু! তুমি মোদের দাও সে শক্তি

কেউ বলে বিশ্বাসের কথা
বিশ্বাসে কেউ পায় ব্যাথা
আমি বলি হে বিশ্বাস
তুমি মোরে কর ক্ষমা।
বিশ্বাসে যদি পায় মনুষ্য পরিচয়
মিছে দ্বন্দে্ব কেন তব মানবের ক্ষয়।
খোদার আইনকে যদি নাও তুলে হাতে
ক্ষমা মিলবে কি তবে বিশ্বাসের পাতে?
বিশ্বাসী যদি হয় অবিশ্বাসীর মত
দুর হবে কেমনে সমাজের ময়লা যত?
কুরআন পড়িয়া যে কুরআনের বাণী
না করিলো মনে ধারন
সে কেমনে করিবে মিথ্যারে বারণ?
সমাজে সংঘাত সে আনিবে অকারন।
পাথরের আঘাতে হারাইয়া দন্ত
রাসুল (সাঃ) নিজেরে করিয়াছে ক্ষান্ত
ব্যাথা ভূলে উপরে তুলিয়া হাত
ক্ষমা কর প্রভু! করিয়াছে মোনাজাত।
আমরা তব পারিনা কেন করিতে মাফ
চারিত্র‍্য মাধুর্য্য কেন পারিনা করিতে
সমাজের যত কালো-ময়লা সাফ!
প্রভু তুমি মোদের দাও হে সে শক্তি
রাসুল (সাঃ) এর সেই সুন্নাত করিয়া ধারন
আনিতে পারি যেন মানবতার মুক্তি।

নিষ্ঠুর জনপদ

নিষ্ঠুরতায় দেশটা হয়েছে শেষ
এরমাঝেই আমরা আছি বেশ!

কখনও লাঠির বারি কখনও বা খুন্তির ছ্যাকা
কখনো হাতে পায়ে ধরে, আর্তনাদ উঠে হৃদয় কাপা!

কখনো বেওয়ারিশ লাশ, কখনও বা হচ্ছে মানুষ গুম
এরমাঝে আমাদের হচ্ছে ব্যাপক ঘুম!

গাড়ির গ্যাস পেটে ভরে কখনও বা করি অট্টহাসি
নিষ্ঠুরতার গাংগে মোরা বেশ ভালো আছি!

কারো মুখে সংগীত, কারো হাতে গান (বন্দুক)
সেলফি নিয়ে কেউবা আছে ব্যস্ত
পাইলে মন্তরীগন দেশটা গিলতো নাকি আস্ত!

তারপরো নিষ্ঠুরতায় মোরা আছি বেশ
মনে স্বপ্ন সুখের ঘুম হোক না আগে শেষ!

এলোমেলো ছড়া

দেশ ছেড়ে প্রবাসীর বেশে
পড়ে আছি অনিশ্চয়তার এক দেশে।
সকাল বেলা সূর্য্য দেখে ভাববেন
দিনটা কাটবে ভালোই
খানিক বাদে চোখ মেললেই দেখবেন
আকাশ টা ছেয়ে গেছে কালোয়।
মাঝে মাঝে আকাশটাতে
জমে মেঘের মেলা
মেঘ-বৃষ্টি আর সূর্য্যি মামার
লুকোচুরী খেলা।
সকাল বেলা সূর্য্য হাসে
দুপুর বেলা বৃষ্টি
বিকেল বেলা বসন্ত আসে
রাত্রিটা এক আজব সৃষ্টি।
অফিস শেষে রাত্রি বেলা
ফিরবেন যখন বাসায়
সূর্য্য তখনো জেগে আছে
অন্ধকারের আশায়।
রাত্রি বেলা জ্বলে আলো
দিনের বেলা কালো
মানুষ গুলোরে মনে হবে
অনেক বুঝি ভালো।
হাসি মুখে থ্যাংকু বললে
ভাববেন জবটা বুঝি হলো
বাড়ি ফিরে মেইল টা দেখে
মনটা হবে কালো।
আজব দেশের আজব মানুষ
আজব সব কারবার
কারো সাথে নেই কেউ
সবাই যার যার তার তার।

“চোরের শপথনামা”

শুনশান জনপদ, চারিদিকে কানাঘুষা
সবাই বলছে যখন আর নাই কোন আশা
হঠাৎ এক চোরের দল, হাকিয়া উঠিল রব
ভোট দিলেই হবে সমস্যার সমাধান সব।
এরপর চারিদিকে প্রান-চাঞ্চল্য, আশার আলো
এই বুঝি কেটে গেলো মেঘ আকাশ টা হলো ভালো
নারী-পুরুষের পদ চারনায় মুখরিত জনপদ-
কেউবা সাইকেল চালিয়ে, কেউবা ঝাড়ু হাতে
নেমে পড়লো ধুয়ে ফেলতে জনতার মনের ক্ষত।
অবশেষে প্রতীক্ষীত দিন আসলো—
একরাশ স্বপ্ন নিয়ে সবার ঘুমাতে যাওয়া
রাত পোহালেই প্রতিক্ষার অবসান, হবে বুঝি নবসুচনা-
—কত কি??
কিন্তু চোর কি বদলায় চরিত্র?
চোরের মনে শংকা, যদি হেরে যাই জনমতে
হাটলো তারা সেই চেনা পথে,
সমস্ত জনপদকে ঘুমিয়ে রেখে…
চোরেরা চুরির মহৌৎসবে মেতে উঠলো।
জয় হলো চোরের, হেরে গেলো সমগ্র জনপদ
মানুষের আশাগুলো ভেসে গেলো চুরির উৎসবে।
সেই চোর হবে নাকি নগর পিতা…??
আলবৎ হবে, চোরেই তো হবে পিতা চোরের
সাধারন মানুষ ঘুমে স্বপ্ন দেখে নতুন ভোরের

চলছে আয়োজন হবে নাকি চোরের শপথনামা
শুনে রেখো হে চোর! মানুষ করবেনা তোমায় ক্ষমা!

ভাষার জন্য কাঁদি

ভাষার জন্য কাঁদি মোরা, ভাষার জন্য কাঁদি
কথার মাঝে ইংরেজী বলে বিদ্যা জাহির করি।
বাংলার সাথে মিশালে ইংলিশ টেষ্ট ভালো লাগে
কথার মাঝে দু-একটা ইংলিশে স্মার্ট সবাই বলে।
বাইরে মোদের ভাষাপ্রীতি অন্তরে পরকিয়া
ভাষার উন্নতি হবে কেমনে এমন প্রেমিক দিয়া।

হরতালে কি হয়??

হরতালে কি হয়?

জনতার জয় হয়
আসলেই কি তাই হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
হরতালে কি হয়??
টিভি শো হয়
বক্তৃতা, বিবৃতি হয়
আসলেই কি জয় হয়??
শুধু শুধু ভয় হয়।
হরতালে কি হয়???
মানুষে মানুষে মিছিল হয়
গোলাগুলি আর বোমাবাজি হয়
আসলে জয়টা কার হয়??
শুধু শুধু ভয় হয়।
হরতালে কি হয়????
কিছু প্রান ঝড়ে যায়
কিছু মানুষ জেলে যায়
আসলেই কি জয় হয়??
শুধু শুধু ভয় হয়।
হরতালে কি হয়?????
সরকারে কি ভয় পায়?
সে ভয়ে কি জনতা জয় পায়?
সে জয় কি জনতার হয়?
ক্ষমতায় জয় হয়,
মানবতার পরাজয় হয়।

ক্ষমতায় কি হয়?
পিলখানা ট্রাজেডি হয়
ফেলানী ঝুলে পাখি হয়
আসলেই কি জনতার জয় হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
ক্ষমতায় কি হয়??
পদ্মা সেতু খাওয়া হয়
শেয়ারবাজার খালি হয়
লক্ষ জনতা ফকির হয়
আসলেই কি জনতার জয় হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
ক্ষমতায় আসলে কি হয়?
সাগর-রুনিরা খুন হয়
ইলিয়াস আলি গুম হয়
জনতার কি জয় হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
ক্ষমতায় আসলে কি হয়?
মানুষে মানুষে দ্বন্দ হয়
ভালোবাসার ক্ষয় হয়
ভ্রাতৃত্ব নষ্ট হয়
শিক্ষাংগন কলুষিত হয়
জনতার কি জয় হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
ক্ষমতায় আসলে কি হয়???
টোকাইরা শাসক হয়
সমাজটা আবর্জনায় ভরে যায়
জনতার কি হয়?
শুধু শুধু ভয় হয়।
ক্ষমতায় তাহলে কি হয়???
প্রজারা কি রাজা হয়?
দারিদ্র কি দুরীভূত হয়?
দ্বন্দ্ব কি মিটে যায়?
ভালোবাসা-সম্প্রীতি কি বৃদ্ধি পায়?
জনতার কি জয় হয়?
শুধু শুধু প্রান যায়।

জনতার ভোটে জনতা মারিছে জনতায়
জনতার রক্তা পান করিয়া
রক্ত চোষা রাক্ষস রা যায় ক্ষমতায়।