Allah’s wisdom behind trying His servants with calamities and ordeals [Allamah Ibn Baaz]

From `Abdul `Aziz Bin `Abdullah Ibn Baz to all Muslims. May Allah help us do what pleases Him and safeguard us against what causes His wrath and punishment! Amen!

As-salamu `alaykum warahmatullah wabarakatuh (May Allah’s Peace, Mercy, and Blessings be upon you!)
Allah  has bestowed on us many blessings and countless graces. The most important of these graces and blessings is the blessing of Islam. This great blessing has no equal. Whoever understands it and thanks Allah  for it will be a winner in this world and the hereafter, if he strictly follows it in words and action.

Allah  says: “and if you count the Blessings of Allah, never will you be able to count them. Verily, man is indeed an extreme wrong-doer, a disbeliever (an extreme ingrate who denies Allah’s Blessings by disbelief, and by worshipping others besides Allah, and by disobeying Allah and His Prophet Muhammad sallallahu alaihe wasallam).” [Surah Ibrahim, 14: 34]

Allah (Glorified and Exalted be He) also says: “And whatever of blessings and good things you have, it is from Allah. Then, when harm touches you, unto Him you cry aloud for help.” [Surah Al-Nahl, 16: 53]

Therefore, it is incumbent upon all Muslims to thank Allah (may He be Praised) for these bounties and to avoid being ungrateful. Allah  says while mentioning the bounties He bestows upon His servants: “And Allah has brought you out from the wombs of your mothers while you know nothing. And He gave you hearing, sight, and hearts that you might give thanks (to Allah).” [Surah Al-Nahl, 16: 78]

Thanking Allah  for His bounties in general and in detail protects these bounties and increases them.
Allah  says: “And (remember) when your Lord proclaimed: “If you give thanks (by accepting Faith and worshipping none but Allah), I will give you more (of My Blessings); but if you are thankless (i.e. disbelievers), verily My punishment is indeed severe.” [Surah Ibrahim, 14:7]

Allah  also says: “Nay! But worship Allah (Alone and none else), and be among the grateful.” [Surah Al-Zumar, 39: 66]

Allah  also says: “Therefore remember Me (by praying, glorifying), I will remember you, and be grateful to Me (for My countless Favours on you) and never be ungrateful to Me.” [Surah Al-Baqarah, 2: 152]

Allah  also says: “Work you, O family of D�w�d (David), with thanks!” But few of My slaves are grateful.” Surah Saba’, 34: 13

Moreover, the Prophet (peace be upon him) advised Mu`adh Ibn Jabal (may Allah be pleased with him) to say this Du`a’ (supplication) at the end of every Salah (Prayer): “O Allah, help me to mention, thank and worship You in the best manner.”

Thanking Allah  for His bounties and using them in all that pleases Him make things much better and diminishes the effect of evils.

One of the best and noblest characteristics of the prophets and messengers of Allah and their followers is thanking Allah  for His bounties and asking for His support. Allah  says about His prophet Solomon (peace be upon him): “My Lord! Grant me the power and ability that I may be grateful for Your Favours which You have bestowed on me and on my parents, and that I may do righteous good deeds that will please You, and admit me by Your Mercy among Your righteous slaves.” [Surah Al-Naml, 27: 19]

He also said when mentioning His bounties upon His prophet Noah (peace be upon him): “Verily, he was a grateful slave.” [Surah Al-Isra’, 17: 3]

One of the signs of thanking Allah  for His blessings is using these blessings in what pleases Him and avoiding what displeases Him. One of the signs of thankfulness is to acknowledge these bounties and attributing them to Allah  alone away from ostentation or pride especially before those who are deprived of these graces.

On the contrary, ingratitude to Allah’s bounties and ungratefulness are some of the causes of removing His bounties. Moreover, doing so is considered to be oppression against one’s soul.

Allah  says: “Indeed he succeeds who purifies his ownself (i.e. obeys and performs all that Allah ordered, by following the true Faith of Isl�mic Monotheism and by doing righteous good deeds). And indeed he fails who corrupts his ownself ” [Surah Al-Shams, 91: 9]

It means that man disgraces himself by committing evil deeds.

Fearing Allah, obeying Him, following His commands and avoiding His prohibitions bring goodness, remove evils and keep Allah’s bounties.

Allah  says: “And if the people of the towns had believed and had the Taqw� (piety), certainly, We should have opened for them blessings from the heaven and the earth, but they belied (the Messengers). So We took them (with punishment) for what they used to earn (polytheism and crimes).” [Surah Al-A`raf, 7: 96]

Allah  also says: “Verily, Allah will not change the (good) condition of a people as long as they do not change their state (of goodness) themselves (by committing sins and by being ungrateful and disobedient to Allah). But when Allah wills a people’s punishment, there can be no turning back of it, and they will find besides Him no protector.” [Surah Al-Ra`d, 13: 11]

It is part of Allah’s wisdom that He tries His servants with goodness and evil in order that the believer might increase in his belief, reliance and resorting to Allah (may He be Praised). Therefore, believers will exercise patience with what Allah  predestines in order that their reward might multiply. Trials also make Muslims fear the bad consequences of sins and therefore give them up.

Allah  says: “And certainly, We shall test you with something of fear, hunger, loss of wealth, lives and fruits, but give glad tidings to As-S�bir�n (the patient). Who, when afflicted with calamity, say: “Truly! To Allah we belong and truly, to Him we shall return. They are those on whom are the Salaw�t (i.e. who are blessed and will be forgiven) from their Lord, and (they are those who) receive His Mercy, and it is they who are the guided ones.” [Surah Al-Baqarah, 2: 155-156]

Allah  also says: “Or think you that you will enter Paradise without such (trials) as came to those who passed away before you? They were afflicted with severe poverty and ailments and were so shaken that even the Messenger and those who believed along with him said, “When (will come) the Help of Allah?” Yes! Certainly, the Help of Allah is near! ” [Surah Al-Baqarah, 2: 214]

Allah  also says: “Do you think that you will enter Paradise before Allah tests those of you who fought (in His Cause) and (also) tests those who are As-S�bir�n (the patient)?” [Surah Al-`Imran, 3: 142]

Allah  also says: “Alif-L�m-M�m. [These letters are one of the miracles of the Qur’�n, and none but Allah (Alone) knows their meanings.] Do people think that they will be left alone because they say: “We believe,” and will not be tested. And We indeed tested those who were before them. And Allah will certainly make (it) known (the truth of) those who are true, and will certainly make (it) known (the falsehood of) those who are liars, (although Allah knows all that before putting them to test).” [Surah Al-`Ankabut, 29: 1-3]

Allah  also says: “Verily, Allah knows those who believe, and verily, He knows the hypocrites [i.e. Allah will test the people with good and hard days to discriminate the good from the wicked, although Allah knows all that before putting them to test].” [Surah Al-`Ankabut, 29: 11]

Allah  also says: “and We shall make a trial of you with evil and with good. And to Us you will be returned.” [Surah Al-Anbiya’, 21: 35]

All these Ayahs (Qur’anic verses) point out that Allah (may He be Praised) tries His servants as He did with the preceding nations. If they exercise patience and repent and return to Him with regard to all that befalls them, they will receive His reward, forgiveness and satisfaction and they will be admitted to paradise and compensated with what is better than what they missed.

All the signs that happen in this universe that arouse sympathy like thunderbolts, fierce wind, floods that destroy everything, earthquakes that cause great destruction to lofty buildings, great trees, properties and mankind, volcanoes that destroy all that surrounds them, solar and lunar eclipses and other things with which Allah  tries His servant, are but means of frightening and warning them to give up aggression.

This also may urge them to fear Allah  and return to Him. These signs also try their patience for what Allah  predestines. Moreover, the punishment of the hereafter is greater and the command of Allah  is superior.
When Quraysh belied the Messenger of Allah (peace be upon him), Allah told His Messenger (peace be upon him) that He had destroyed the nations who belied the previous messengers and prophets.

Allah says: “And how many a generation We have destroyed before them who were stronger in power than they. And (when Our Torment came), they ran for a refuge in the land! Could they find any place of refuge (for them to save themselves from destruction)?” [Surah Qaf, 50: 36]

Allah revealed after this Ayah His saying: “Verily, therein is indeed a reminder for him who has a heart or gives ear while he is heedful.” [Surah Qaf, 50: 37]

Therefore, it is incumbent upon Muslims to fear Allah by following His commands and avoiding His prohibitions. If they are inflicted with any of these calamities, they have to repent and return to Allah, and to search in themselves for the causes of this trial.

Allah says: “And whatever of misfortune befalls you, it is because of what your hands have earned. And He pardons much.” [Surah Al-Shura, 42: 30]

They have also to repent to Allah because of their negligence of doing righteous deeds and their committing of sins. Tawbah (repentance to Allah) repels afflictions. They also have to exercise patience and seek Allah’s reward for the calamities they suffered. Allah  says: “but give glad tidings to As-S�bir�n (the patient). Who, when afflicted with calamity, say: “Truly! To Allah we belong and truly, to Him we shall return. They are those on whom are the Salaw�t (i.e. who are blessed and will be forgiven) from their Lord, and (they are those who) receive His Mercy, and it is they who are the guided ones.” [Surah Al-Baqarah, 2: 155]

Allah  also says: “No calamity befalls, but by the Leave [i.e. Decision and Qadar (Divine Preordainments)] of Allah, and whosoever believes in Allah, He guides his heart [to the true Faith with certainty, i.e. what has befallen him was already written for him by Allah from the Qadar (Divine Preordainments)]. And Allah is the All-Knower of everything.” [Surah Al-Taghabun, 64: 11]

This means that whoever is afflicted with any of these calamities and believes that it is predestination of Allah and receives it with patience seeking His reward, Allah will guide his heart to certainty and belief. He also has to realize that what befell him was not to miss him and what missed him was not to befall him.

He also believes that Allah will compensate him with guidance in his heart and truthful certainty. Allah may also make up for him what is better than what he missed. Being known through scientific realities and calculations, solar and lunar eclipses or other signs occur by Allah’s Might to make His servants fear Him. Therefore, He predestines these signs as He wills.

Allah says: “No calamity befalls on the earth or in yourselves but it is inscribed in the Book of Decrees (Al-Lauh Al-Mahf�z) before We bring it into existence. Verily, that is easy for Allah. In order that you may not grieve at the things that you fail to get, nor rejoice over that which has been given to you. And Allah likes not prideful boasters.” [Surah Al-Hadid, 57: 22-23]

When a solar eclipse happened during the life time of the Prophet (peace be upon him), he along with the Companions performed Salat-ul-Kusuf (Prayer on a solar eclipse).

Then, the Prophet (peace be upon him) delivered an eloquent speech telling his Companions that the sun and the moon are Allah’s signs that do not eclipse because of the death or life of anyone. Allah sends these signs to make His servants fear Him.

Then, he asked them to perform Salah (Prayer), pay charity, pronounce Takbir (saying: “Allahu Akbar [Allah is the Greatest]”), Dhikr (Remembrance of Allah) and Istighfar (seeking forgiveness from Allah) and free slaves.

He said in his sermon: “O followers of Muhammad! By Allah! There is none who has more ghaira (self-respect) than Allah as He has forbidden that His slaves, male or female, commit illegal sexual intercourse. O followers of Muhammad! By Allah! If you knew that which I know you would laugh little and weep much…”

The real life of many Muslims in these days denotes negligence of Allah’s rights and paying no attention to what is incumbent upon them with regard to obeying and fearing Allah.

He who ponders on this reality will find many penalties inflicted upon nations and people as floods, hurricanes, earthquakes, famines and devastating wars that annihilate everything.

Allah (may He be Praised) points out in His Glorious Book some of the punishments He sends down upon those who disobey His commands and deviate from the right path from among the perished nations who belie Allah’s messengers.

This is because people may receive admonition and beware of their deeds. Allah says: “So We punished each (of them) for his sins; of them were some on whom We sent H�sib (a violent wind with shower of stones) [as on the people of L�t (Lot)], and of them were some who were overtaken by As-Saihah [torment – awful cry. (as Tham�d or Shu’aib’s people)], and of them were some whom We caused the earth to swallow [as Q�r�n (Korah)], and of them were some whom We drowned [as the people of N�h (Noah), or Fir’aun (Pharaoh) and his people]. It was not Allah Who wronged them, but they wronged themselves.” [Surah Al-`Ankabut, 29: 40]

Sins have bad effects on heart, body and society. They incur Allah’s Wrath and Punishment in this world and in the hereafter. No body knows the details of these bad effects and punishment except Allah alone.

They bring many kinds of corruption in the earth; in water, air, food, and houses. Allah  says: “Evil (sins and disobedience to Allah) has appeared on land and sea because of what the hands of men have earned (by oppression and evil deeds), that He (Allah) may make them taste a part of that which they have done, in order that they may return (by repenting to Allah, and begging His Pardon).” [Surah AlRum, 30: 41]

Allah also says: “And indeed We punished the people of Fir’aun (Pharaoh) with years of drought and shortness of fruits (crops), that they might remember (take heed).” [Surah Al-A`raf, 7: 130]

There is a lesson in these calamities for he whom Allah predestined to be a happy person. In general, the evils that occur in this world and the penalties that are carried out in the hereafter are the result of sins and evil deeds. One of the signs of the hardness and rudeness of the heart is hearing Ayahs negligently that talk about these lessons and examples of the perished nations that may cause mountains to humble themselves if they had minds.

However, the hard hearts continue with their aggression and sins because of being deceived by the delay of Allah’s punishment. They devote themselves to their whims and desires and pay no attention to threat or warning. Allah says: “Woe to every sinful liar. Who hears the Verses of Allah (being) recited to him, yet persists with pride as if he heard them not. So announce to him a painful torment!” [Surah Al-Jathiyah, 45: 7-8]

Moreover, persisting on doing sins and evil deeds despite the occurrence of some punishments and penalties for it is a sign of weakness or lack of faith.

Allah says: “Truly! Those, against whom the Word (Wrath) of your Lord has been justified, will not believe. Even if every sign should come to them, until they see the painful torment.” [Surah Yunus, 10: 96-97]

Allah says: “Say: “Behold all that is in the heavens and the earth,” but neither Ay�t (proofs, evidence, verses, lessons, signs, revelations, etc.) nor warners benefit those who believe not.” [Surah Yunus, 10: 101]

Allah also says: “Nay! But on their hearts is the R�n (covering of sins and evil deeds) which they used to earn. Nay! Surely they (evil-doers) will be veiled from seeing their Lord that Day. Then, verily, they will indeed enter (and taste) the burning flame of Hell. Then, it will be said to them: “This is what you used to deny!” [Surah Al-Mutaffifin, 83: 14-17]

Our brothers, we have recently watched a horrible catastrophe that has a lesson for he who wants to learn. It is incumbent upon Muslims to take lessons from what happens in this universe.

Allah says: “Then take admonition, O you with eyes (to see).” [Surah Al-Hashr, 59: 2]

We heard on broadcasts, read in newspapers and magazines and watched on televisions what people talk here and there about the earthquakes that happened in Northern Yemen that devastated many towns and villages. It caused the death of many people and destroyed many buildings and properties. Many people were wounded and many families lost their money, homes, offspring and wives.

Many women became widows and many children became orphans. All these calamities happened in a short time to denote Allah’s Might and power. It also means that people are weak before Allah’s Might regardless of the might and power they have attained.

It is obligatory upon all Muslims to learn the lessons from what happened. They also have to repent to Allah and return to Him and avoid all that brings His wrath and anger. We supplicate Allah to bestow His forgiveness and mercy upon those who died in Yemen because of that catastrophe and to grant people tranquility and consolation.
We ask Allah to make all the catastrophes they suffered a means of removing their sins, increasing their rewards and ranks and arousing their heedless hearts. We also have to offer them consolation through cooperation and kindness. Moreover, we should offer them charity to sustain them in their calamity and relieve the grave impact of this catastrophe.

Allah says: “And whatever good you send before you for yourselves, (i.e. Naw�fil non-obligatory acts of worship: prayers, charity, fasting, Hajj and ‘Umrah), you will certainly find it with Allah, better and greater in reward.” [Surah Al-Muzzammil, 73: 20]

Allah also says: “and whatsoever you spend of anything (in Allah’s Cause), He will replace it. And He is the Best of providers.” [Surah Saba’, 34: 39]

Allah also says: “and do good. Truly, Allah loves Al-Muhsin�n (the good-doers).” [Surah Al-Baqarah, 2: 195]

The Prophet (peace be upon him) said: “He who removes from a believer one of his difficulties of this world, Allah will remove one of his troubles on the Day of Resurrection; and he who relieves a person in a crisis, Allah will make things easy for him on the Day of Resurrection; he who covers up (the faults and sins) of a Muslim, Allah will cover up (his faults and sins) in this world and in the Hereafter. Allah supports His slave as long as the slave is supportive of his brother…” [Reported by Muslim]

The Prophet (peace be upon him) also said: [Whoever fulfills the needs of his brother, Allah will fulfill his needs”.]
The Prophet (may Allah’s Peace and Blessings be upon him) also said: “A faithful believer to a faithful believer is like the bricks of a wall, enforcing each other.” While saying so the Prophet (peace be upon him) clasped his hands, by interlacing his fingers.”

He (peace be upon him) also said: “The similitude of believers in regard to mutual love, affection, and fellow-feeling is that of one body; when any limb of it aches, the whole body aches, because of sleeplessness and fever.”

This Hadith was reported by Al-Bukhari and Muslim. Therefore, we have to support our brothers in Yemen and pay all the charity that we can to achieve the meaning of brotherhood in Islam that was mentioned by the Prophet (peace be upon him) in many Hadiths.

We also have to do so in order to obtain the great reward promised by Allah for those who spend their money in His cause. May Allah grant all Muslims in general and our brothers in Yemen in particular success in forbearance and seeking Allah’s reward.

We ask Him also to multiply the reward for us and them. We also ask Him to grant those who are injured tranquility and the best consolation. We supplicate Him to grant all Muslims sincere repentance, strictness in following the truth and caution in avoiding all that brings His Wrath and Punishment. He is the guardian and the only One who is able to do this.

As-salamu `alaykum warahmatullah wabarakatuh (May Allah’s Peace, Mercy, and Blessings be upon you!)

General Chairman of General Chairman of the Departments of Scholarly Research, Ifta’, Daw`ah, and Guidance the Departments of Scholarly Research, Ifta’, Daw`ah, and Guidance

সংক্ষেপে কুরআন এবং হাদীসে বাইয়াত বা শপথ

” Certainly was Allah pleased with the believers when they pledged allegiance to you, [O Muhammad], under the tree, and He knew what was in their hearts, so He sent down tranquillity upon them and rewarded them with an imminent conquest”

”আল্লাহ মুমিনদের প্রতি সন্তুষ্ট হলেন, যখন তারা বৃক্ষের নীচে আপনার কাছে শপথ করল। আল্লাহ অবগত ছিলেন যা তাদের অন্তরে ছিল। অতঃপর তিনি তাদের প্রতি প্রশান্তি নাযিল করলেন এবং তাদেরকে আসন্ন বিজয় পুরস্কার দিলেন।” ৪৮ঃ১৮

বাইয়াতের উপর হাদীস

The Beloved Messenger of Allah (peace and blessings of Allah be upon him) said, “Whoever dies and did not take an oath of allegiance (to a Muslim leader) has died a death of jahiliyah (ignorance).” [Bukhari, Muslim]

“Auf Ibne Maalik Ash-ja-ee (Radhiyallahu Anhu) said: We were with Nabi Sallallaahu alayhi wasallam, seven, eight or -nine (of us), when he said:

‘Will you not make baiyat (pledge) to the Rasul of Allah?’

We stretched our hands and enquired: On what shall we make baiyat to you, O Rasul of Allah? He said.

‘That you make the Ibaadat of Allah,- that you associate nothing with Him,- that you perform the five Salaat; that you hear and obey.”

(Muslim, Abu Daawood, Nisaai)

হাদীসে মহিলাদের বাইয়াত গ্রহনের পদ্ধতি

Aa’ishah (may Allaah be pleased with her) said: “No, by Allaah, the hand of the Messenger of Allaah (peace and blessings of Allaah be upon him) never touched the hand of any (non-mahram) woman. Rather he would accept their allegiance (bay’ah) in words only.”

(Narrated by al-Bukhaari, 5288; Muslim, 1866)

Al-Nawawi (may Allaah have mercy on him) said in his Sharh (commentary): “This indicates that for women, allegiance is given in words only, without taking the hand of the leader, and for men it is done in words and by taking his hand.

রাসুল (সাঃ) এর জীবাদ্দশায় বাইয়াত

বাইয়াতে আক্ববাঃ  ৬২০ খ্রীষ্টাব্দে

৬২০ খ্রীষ্টাব্দে ইয়াসরিব থেকে ৬ জন লোক রাসুল (সাঃ) এর সাথে দেখা করতে আসেন তারা আল্লাহ, রিসালাত এসব বিষয় গভীরভাবে তার কাছে শোনে এর পরের বছর ইয়াসরিব থেকে আরো ১২ জন লোক এসে রাসুল (সাঃ) এর বাইয়াত গ্রহন করেন। নিম্নলিখিত বিষয়ের উপর তারা বাইয়াত গ্রহন করে।

First Pledge of ‘Aqaba, included the following:

We shall not associate anyone with Allah (The One God): whether in worship, His attributes, His power or His authority.
We shall not indulge in adultery, fornication, and practice or propagate any other indecency.
We shall not steal or rob anyone’s property in any manner or under any pretense.
We shall not practice the custom of killing children.
We shall not falsely accuse or backbite anyone.
We shall not disobey you in good deeds and just cause.
We shall always follow you, be it hard or easy, to our liking or not, and we shall act according to your commands. We shall follow and obey your decisions even if it be against ourselves and in favor of others.
We shall not participate in opposing the deserving persons of authority or positions.
We shall support the truth and justice and stand firm under all circumstances. In matters of Allah’s religion, we shall not be afraid for our name, disrepute, disgrace, or blame.

After concluding this pledge, the prophet (pbuh) said: “If you fully comply with these promises, you will have the right to paradise; but if you fault, you will not have the right to paradise. Allah may punish you or He may forgive you.”

বাইয়াতে রিদওয়ানঃ ৬২৮ খ্রীষটাব্দে

বাইয়াতে রিদওয়ানঃ ৬২৮ খ্রীষটাব্দে

৬২৮ খ্রীষ্টাব্দের মার্চ মাসে মুহাম্মদ (সাঃ) হজ্জ্ব করার পরিকল্পনা গ্রহন করেন। মক্কার কুরাইশরা মক্কার ভিতরে মুসলিমদের প্রবেশে নিষেধাগ্গা আরোপ করে এবং তারা প্রতিরোধ করার জন্য সংকল্পবদ্ধ হয়ে পরে যদিও মুসলিমদের যুদ্ধের জন্য কোন পরিকল্পনা ছিলোনা। মুহাম্মদ (সাঃ) মক্কার বাইরে তাবু স্থাপন করেন এবং উসমান (রাঃ) কে মক্কার কুরাইশদের সাথে আলোচনার জন্য প্রেরন করেন। মক্কার কুরাইশরা উসমান রাঃ এর মক্কার অবস্থানকে দীর্ঘায়িত করে তুলে এবং তার অবস্থান জানাতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করে। এটি মুসলিমদের মনে বিশ্বাস তৈরী করে যে মক্কার কুরাইশরা উসমান (রাঃ) কে হত্যা করেছে। এই ঘটনার জন্য মুহাম্মদ (সাঃ) ১৪০০ জন সাহাবার সমাবেশ করেন এবং আমৃত্যু লড়ায়ের শপথ গ্রহন করেন। এই শপথ একটি গাছের নিচে নেয়া হয়। এ সময় সাহাবা রা রাসুল (সাঃ) এর হাতের উপর হাত রেখে শপথ নিয়েছেন।

দেশীয় ট্রাডিশন বনাম ইসলামিক ট্রাডিশন

ঘটনা ১ঃ লোকটি খুব ইসলামের কথা বলে। বাচ্চাগুলোকে ইসলামের পালনের জন্য কড়া শাসনে রাখছে। কিন্তু বাচ্চাগুলোকে সঠিকভাবে কেয়ার করবে সেটি তিনি করতে পারবেন না। তিনি হলেন স্বৈরশাসক। যে সব ফ্যামিলিতে এমন লোক আছে সে ফ্যামিলির বাচ্চারা ইসলাম নিয়ে কনফিউসনে ভূগে। পরিবারের বাচ্চাগুলো ছোট বেলা থেকে ইসলামের কথা শুনে শুনে বড় হয় কিন্তু পরিবারের কর্তা ব্যক্তির আচরনে তারা দ্বিধা নিয়ে বড় হয়। পরিবারের কর্তা ব্যক্তির জন্য মুসলিমদের নিয়ে তাদের মনে এক ধরনের ভয় তৈরী হয়। ফলশ্রুতিতে পরবর্তীতে ইসলাম পালন তো পরের কথা মুসলিম পুরুষকে /নারীকে বিয়ে করতেই ভয় পায়।

ঘটনা ২ঃ ছেলে বড় হয়েছে বিয়ে করবে, ছেলে বিয়ে করবে ছেলের মনের মত ছেলে ভালো মুসলিম কিন্তু সমস্যা হলো পরিবার সম্মতি দিচ্ছে না। পাশের বাড়িতে থাকে অন্য ধর্মের লোক তারা পরিবারটিকে মুসলিম পরিবার হিসেবে জানে। সুতরাং তারা ভেবে বসলো এটি ইসলামের একটি সিসটেম, মুসলিম রা ব্যাকডেটেড।

ঘটনা ৩ঃ রহিম সাহেব কথায় কথায় ৪ টা বিয়ের কথা বলে। বউকে শাসায় ৪ টা বিয়ে করবো। বউকে পিটায় কারন স্বামীর পায়ের নিচে স্ত্রীর বেহেস্ত। পাশের বাড়ির লোক অন্য দেশের তারা ভেবে নিলো এটাও ইসলামের সিসটেম।

ইসলামিক ট্রাডিশন বনাম দেশিয় ট্রাডিশন
এই দুই জিনিসের পার্থক্য করতে পারলে, নিজেদের পরিচয় সম্বন্ধে সঠিক ধারনা না থাকলে মানুষের মধ্যে ভূল বার্তা চলে যায়। আমরা যখন কথায় কথায় নিজেদের ভালো মুসলিম হিসেবে প্রমান করার চেষ্টা করি, অন্যদের যখন ইসলামের ভালো কথা বলে বেড়াই, যখন আমরা কথা দিয়ে ইসলাম কায়েম করে ফেলি তখন যদি সেই কথার সাথে ব্যক্তি জীবনের ইসলামের চর্চার মিল না থাকে তাহলে মানুষের মধ্যে খোদ ইসলাম নিয়ে সন্দেহ তৈরী হয়। কারন শয়তান মানুষকে ইসলাম থেকে দুরে সরানোর অনেক চেষ্টা করে। জন্মগত ভাবে আমরা মুসলিম হওয়ার কারনে ইসলামের বিষয়গুলিকে বিষদ ভাবে জানা ও মানা আমাদের সবার পক্ষে সম্ভবপর হয়ে উঠেনা। ফলে দেশিয় মনোবৃত্তি আর ইসলামের পরিচয় যখন মিশ্রন ঘটে তখন বেশির ভাগ সময়ে আমাদের চরিত্রে দেশিয়/ভূ-জাতিগত বৈশিষ্ট্য প্রাধান্য লাভ করে ফলে ইসলাম পালন করতে গিয়ে আমরা স্থানীয় ট্রাডিশনের আলোকে পালনের চেষ্টা করি। অনেক ক্ষেত্রে দেশিয় ট্রাডিশনকে ইসলামের ট্রাডিশন মনে করে সেটিকে বিশ্বাসে পরিনত করি এবং সেটি আমল না হলে ঈমান বরবাদ হয়ে যাবে এমনটি মনে করি। ফলে অনেক ক্ষেত্রেই আমরা ইসলামকে ভূলভাবে উপস্থাপন করি। এরকম একটি উদাহরন দেয়া যায়, সংগঠনের আনুগত্যের ব্যাপারে।
দেশিয় ট্রাডিশনে দলীয় নেতার আনুগত্য হলো প্রভুর সামনে মাথা নত করার সমান (নাউযুবিল্লাহ)। এখানে দেশীয় ট্রাডিশনকে ইসলামের সিসটেমের মধ্যে ঢুকানোর ফলে দলীয় নেতাদের সামনে কাচুমাচু করা, মতের সাথে দ্বি-মত করা এমনকি নেতাদের সাথে মতানৈক্য দেখা দিলে সেটিকে ঈমানের সাথে সাংঘার্ষিক মনে করা হয়। অথচ হযরত উমর (রাঃ) মত সাহাবাদের ভরা মসজিলে জবাবদিহি করতে হয়েছিলো। দেশিয় কালচারে বড় হয়ে উঠা লিডার রা জবাবদিহি ত বড় কথা তাদের সামনে যুক্তিপূর্ণ কথাকে সংগঠনের আনুগত্যর বরখেলাপ মনে করে। অথচ ইসলামের ট্রাডিশনে এসবের কোন ভিত্তি নেই।

আমরা যখন মানুষের সামনে পরিচয় দেই তখন স্বভাব গত ভাবে আমারা আমাদের জান্নাতি হিসেবে পরিচয় হওয়ার চেষ্টা করি। দেশিয় পরিচয় কে পরে প্রাধান্য দেই বেশির ভাগ সময়েই। এই কাজটি বেশি করে ইসলাম প্রেমিক লোক গুলৈ। কারন তারা মনেকরে ইসলামের পরিচয় দিতে পারলেই হয়ত জান্নাতে চলে যাবে কিন্তু সেই পরিচয় দিতে গিয়ে ব্যক্তি ইসলামের সঠিক চর্চা না থাকায় বা না জানায় হিতে বিপরীত হয়ে দাড়ায়। প্রাকটিসিং মুসলিমদের ও বিপদে ফেলে দেয়। যেমন অনেকেই মুসলিম পরিচয় দিয়েও অ্যালকোহল পান করে যখন কোন অন্যধর্মের লোক ভালো মুসলিম দেখে তখন তাকে নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়।

বাংলাদেশে বিয়ের ক্ষেত্রে ছেলে মেয়ের কোন অনুমতি অনেক ক্ষেত্রে নেয়া হয় না। বাইরের দেশের মানুষ এগুলোকে ইসলামের কালচার মনে করে কারন তারা জানে আমরা সবাই মুসলিম। আবার বাংলাদেশের অনেক স্বামী বউকে তাদের সম্পত্তি মনে করে, তাদের উপর তাদের বস-কর্মচারীর সম্পর্কের মত আচরন করে। আবার বউয়েরাও এগুলোকে মেনে নেয় জান্নাতে যাওয়ার স্বপ্নে।

এসব কিছুই হয় মূলত সঠিক শিক্ষার অভাবে এবং দুই ট্রাডিশনকে পার্থক্য করতে না পারার কারনে।

আমার ল্যাবের একজন সেদিন প্রশ্ন করেছিলো যে ইসলামে চারটি বিয়ে করা যায় কিনা কেন? আমরা মুসলিম পুরুষরা চারটি বিয়ের কথাকে প্রচার করেছি নিজেদের ভোগের স্বার্থেই। চারটি বিয়ের কথা প্রচার করেছি ঠিকই কিন্তু তার শর্তগুলো প্রচার করেছি কম। ফলে মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরী হয়। মানুষ ইসলাম নিয়ে ভূল বুঝে।

বাদাম খেয়ে পেট খারাপ হলে নাকি তার উপরের বাদামী পর্দাটা সহ খেলে ভালো হয়ে যায়। শুধু বাদামের ফজিলত বর্ণনা করার ফলে বেশি খাওয়ার ফলে যখন অনেকের পেট নষ্ট হয়ে যায় তখন ওষুধের ব্যবস্থা করা ছাড়া উপায় থাকেনা।

আমার কাছে মনেহয় কেউ যদি ভালো মুসলিম না হয়, বা যদি কারো ইসলাম নিয়ে ভালো ধারনা না থাকে তাহলে অন্যধর্মের লোকের কাছে মুসলিম পরিচয়ের প্রাধান্য না দিয়ে ভূ-জাতিগত
পরিচয় দেয়াই শ্রেয়। আবার সংগঠনের জন্য যারা ইসলাম নিয়ে কাজ করে, ইসলামকে প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করে তাদের ইসলামি ট্রাডিশন এবং দেশীয় ট্রাডিশনের উপর বেশি বেশি ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা দরকার। তাহলে মানুষ বিভ্রান্তি থেকে রক্ষা পাবে।

জন্মগত মুসলিম হওয়ার কারনে, দিনশেষে আমরা বাংলাদেশি হয়ে ঘরে ঢুকি।

আত্না বা রূহের পুষ্টি

গত সপ্তাহে তারবিয়াহ প্রোগ্রামের যে কয়েকটি কথা ভালো লেগেছিলো।
মাওলানা সাইফুদ্দীন সাহেব কথাগুলো বলেছিলেন শরীর এবং নফস (আত্বনা) এর কথা বলতে গিয়ে।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মানুষের শরীর তৈরী করেছেন মাটি দিয়ে। আর এই মাটির তৈরী শরীরের জন্য যা পুষ্টি দরকার সেগুলো মাটি থেকেই উতপন্ন হয়। আমরা সেগুলো গ্রহন করে শরীরকে সুষ্থ্য রাখি, মৃত্যুর পর মাটির তৈরী শরীর মাটিতে মিশে যায়।
মজার বিষয় হলো আল্লাহ মানুষের রুহ (আত্না) কে মাটি দিয়ে তৈরী করেননি। আর তাই রুহ (আত্নার) আত্নার জন্য খাদ্য বা পুষ্টি মাটি থেকে আসেনা। শরীরের জন্য যেমন পুষ্টির দরকার হয়, ঠিক তেমনি আত্নার পুষ্টির জন্য দরকার পুষ্টি। আর আত্নার পুষটি আসে জ্ঞান থেকে। আর এক্ষেত্রে ওহীর জ্ঞানের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। আবার শরীরের পুষ্টির মধ্যে যেমন ভেজাল আছে ঠিক তেমনি আত্নার পুষ্টির মধ্যে ও ভেজাল থাকে। ওহীর জ্ঞানের উপর নির্ভর করেই হয়ত জান্নাতে রুহেরা মর্যাদা লাভ করে। আবার ওহীর জ্ঞানের সাথে সেই জ্ঞানের আমলের বিষয়টি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। সুতরাং রুহ্ বা আত্নাকে সুষ্থ ও সবল রাখতে হলে ওহীর জ্ঞানের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। আত্নাকে সবল না রাখতে পারলে নফসের খায়েসের কাছে পরাজিত হতে হয়, এভাবে বার বার পরাজয়ের ফলে নফসের গোলামী করে যেতে হয়। ফলে রুহ বা আত্না তার জান্নাতী মর্যাদা হারিয়ে ফেলে। মানুষ ভাল-মন্দের বিচারবোধ হারিয়ে ফেলে।

প্রত্যেকটি মানুষের জন্য রুহ্ বা আত্নার সুস্থ্যতার জন্য ওহীর জ্ঞান অর্জন করা খুবই জরূরী। রুহ্এর সূস্থ্যতা মানুষের জীবনে শান্তি নিয়ে আসে এবং মানুষ কল্যান লাভ করে।
প্রশ্ন হতে পারে তাহলে জ্ঞানের উতস ই বা কি?
জ্ঞানের উতস হলো আল-কুরআনের জ্ঞান বা ওহীর জ্ঞান। আল্লা রাব্বুল আলামিন সর্ডজ্ঞানী তিনি জ্ঞানের আধার। সুতরাং জ্ঞানের উতস হলো আল্লাহর দেয়া জ্ঞান। সুতরাং এখানে সন্দিহান হওয়ার কিছুই নেই যে, বিজ্ঞানের চর্চাও একটি আল্লাহর দেয়া জ্ঞানের মধ্যে ই পড়ে। তবে সেই জ্ঞানের চর্চার সফলতা নির্ভর করে বিজ্ঞানকে আমরা কোন কাজে ব্যবহার করছি।

আসুন আত্নাকে সু্স্থ্য রাখার জন্য এবং আত্নার পরিশুদ্ধির জন্য আমরা ওহীর জ্ঞান অর্জন এবং তার চর্চা করি।

আনুগত্য মানেই কি নেতার সামনে কাচুমাচু করে কথা বলা?

গত সপ্তাহে ইক্বমাতে দ্বীন বইয়ের উপর আলোচনা হচ্ছিলো সে আলোচনাতে আনুগত্যকে একটু অন্যভাবে বলা যায় ধরাবাধা আলোচনার বাইরে গিয়ে একটু গভীর আলোচনা করা হয়। আমার কাছে আনুগত্যের সেই ধরনটিই আসল আনুগত্য মনে হয়েছিলো।

আলোচনার সারসংক্ষেপঃ

১) আনুগত্য হতে হবে বাইডিরেক্শনাল

আমীর/লিডার যেমন কর্মীর আনুগত্য কামনা করবে ঠিক তেমনি লিডারকেও কর্মীর ব্যাপারে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে, কর্মীর খোজ খবর নেয়া, ভালো-মন্দের খবর নেয়াও আমীর/লিডারের দায়িত্ব। আমীর/লিডার বা দ্বায়িত্বশীলকে সব সময় মনে রাখতে হবে তিনি শুধুমাত্র আল্লাহর বিধানকে সমুন্নত রাখতেই নেতা নির্বাচিত হয়েছেন।

২) আমীর/লিডার এর আনুগত্যের মান আর রাসুল (সাঃ) এর আনুগত্যের মানের সমান নয়।

প্রথমটির ক্ষেত্রে কর্মীরা কোন সমস্যা দেখলে আমীরকে প্রশ্ন করতে পারে বা এখানে আনুগত্যের ব্যাপারে আমীর/লিডার প্রশ্নের উর্ধে নয় কিন্তু রাসুল (সাঃ) এর আনুগত্যের হলো আবশ্যক এবং নিঃশর্ত সেখানে প্রশ্নের কোন সুযোগ নেই কারন তিনি সরাসরি আল্লাহ থেকে ওহী প্রাপ্ত।

উদাহরন হিসেবে বলা যায়, হযরত উমর (রাঃ) খলিফা থাকাকালীন তিনি ভরা মজলিসে অন্য সাহাবা (রাঃ) এর দ্বারা প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছিলেন।

৩) আনুগত্য করতে গিয়ে কর্মীদের স্বতন্ত্র স্বত্তাকে বিকিয়ে দেয়া যাবেনা বা নষ্ট করা যাবেনা।

অনেক সময় দেখা যায় আনুগত্য করতে গিয়ে জ্বি-হুজুর মার্কা আনুগত্য শুরু হয়ে যায়। দ্বায়িত্বশীল কি ভাববেন মনে করে অনেক সময় ইসলামের অনেক বিষয়ে ছাড় দেয়া হয়, এমন কিছু করা যাবে না। ন্যায় কথা বলার সময় ও নাকি কাচুমাচু করতে হবে এমন একটি ধারনা চর্চা করা হয়। কর্মীদের দ্বায়িত্ব হলো আনুগত্যের জন্য সব সময় আল্লাহর উদ্দেশ্য কথাটি মনে রাখা এবং নেতাদের ভূল ধরিয়ে দেয়া।

৪) আনুগত্য একটি কনসেপ্ট,

আনুগত্য মানেই এই না যে, নেতাকে দেখলেই কাচুমাচু করে দাড়াতে হবে, আনুগত্য মানে এই না যে নেতা যা বলবে অন্ধভাবে তাই পালন করতে হবে, আনুগত্য মানে এই না যে, নেতার সামনে হক কথা বলতেই লজ্জ্বায় কাচুমাচু করতে হবে। আনুগত্য মানেই হলো আল্লাহকে সন্টুষ্টির উদ্দেশ্য আল্লাহর দেয়া কোন বিধান পালনের জন্য নেতার আদেশের আনুগত্য করা।

প্রচলিত সিস্টেমে ইসলামি আনুগত্য র দেশীয় ট্রাডিশনকে মিক্সড করে একটি ভিন্ন রকমের আনুগত্যের চর্চা করা হয়। দেশীয় ট্রাডিশনে গুরুজনের সামনে মাথা উচু করে কথা বলা যাবেনা এমন মনে করা হয়, গুরুজনেরা ভূল বললেও সেটির প্রতিবাদ করা যাবেনা বা গেলেও সেটি না মানলে কিছু বলা যাবেনা। আবার দ্বায়িত্বশীল রা আনুগত্যের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে অনেক সময় সূরা হুজুরাতের কিছু আয়াত তেলওয়াত করে বলে থাকেন যে নেতার চেয়ে গলার স্বর উচু করা যাবেনা। এখানে এটি চিন্তার দাবি রাখে যে সূরায় শুধু রাসুল (সাঃ) এর জন্য বলা হয়েছে নাকি দ্বায়িত্বশীলদের জন্য কারন বর্তমান সময়ে সূরা হুজুরাতের উদাহরন শুধু দায়িত্বশীলদের আনুগত্যের জন্য দেয়া হয়ে থাকে। দ্বায়িত্বশীল রা যদি কোন অন্যায় সিন্ধান্ত নেন এবং কর্মীরা যদি সে বিষয়ে নিজেদের সঠিক অবস্থান জোড়ালোভাবে তুলে ধরেন সেক্ষেত্রে আনুগত্যের বরখেলাপ হয় কিনা বিষয়টি অবশ্যই একটি আলোচনার বিষয় ।

আবার অনেক সময় সংগঠনের ভালো চিন্তার কথা বলে অনেক কিছু চেপে যাওয়ার প্রবনতা দেখা যায় সেগুলো ইসলামী আনুগত্যের মধ্যে পড়ে কিনা ভাবার বিষয়।

দেশীয় ট্রাডিশন এইজন্য বললাম যে, অনেক সময় দেখা যায় গ্রামে দু-বংশের ঝগড়া লাগলে যদি নিজ বংশের কেউ অন্যায় করে তাহলে তার বিরুদ্ধে অবস্থান করা হলে সেটি হয়ে যায় বংশের আনুগত্যের বরখেলাপ।

ইক্বামাতের দ্বীনের ক্ষেত্রে ব্যক্তির নৈতিক উন্নয়নের চেয়ে যখন রাষ্ট্রীয় ভাবে দ্বীন প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়, তখন ভংগুর নৈতিক মান নিয়ে কর্মীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলাম কায়েমের জন্য বেশি সময় ব্যয় করতে হয় এবং সেটিকে অগ্রাধিকার দেয়ার কারনে ব্যক্তির ঈমানী মান এবং আনুগত্যের ক্ষেত্রে আল্লাহর সন্তুষ্টির দিকে সব সময় লক্ষ্য দিতে সফল না হওয়ার কারনে সাংগাঠনিক আনুগত্যের কারনে ইসলামী আনুগত্যের বরখেলাপ হয়ে যেতে পারে। রাসুল (সাঃ) এবং সাহাবা (রাঃ) এর যুগের ঈমান আর আল্লাহর উপর তায়াক্কুল করার ক্ষেত্রে বর্তমান সময়ের মুসলিমদের অবস্থান অনেক অনেক গুন নিচে। এমন অবস্থায় ব্যক্তির মানুষ হিসেবে রাগ-ক্রোধকে সংবরন করার যোগ্যতা অনেক কম থাকে, আবার অন্যের দ্বারা প্রভাবিত বা আবেগ দ্বারা তাড়িত হওয়ার প্রবনতাও বেশি থাকে এমন অবস্থায় রাজনৈতিক বা সাংগাঠনিক আনুগত্যের বিষয়গুলী অনেক গুরুত্ববহন করে কারন এখানে রাজনৈতিক ক্ষমতা বা দলীয় শক্তি থাকায় ব্যক্তি মানুষের দ্বারা অতি সহজেই অন্যায় সম্পাদিত হতে পারে।

সুতরাং ইসলামী আন্দোলনের ক্ষেত্রে ইসলামী আন্দোলনের দ্বায়িত্বশীল এবং কর্মীদের জন্য আনুগত্য ও ইক্বামাতে দ্বীনের আলোচনা একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

একান্ত ভাবনা

সেদিন ল্যাবে একজন অ্যাসোসিয়েট প্রেফেসর এসেছিলেন উনি খন্ড কালীন শিক্ষকতা করেন কুর্দিস্তানে। সে সুইডেনের এক ফার্মা কোম্পানীতে অনেকদিন জব করেছে। এখন সে আমাদের গ্রুপের সাথেও কাজ করে। আমাদের গ্রুপ লিডার তাকে জিজ্ঞেস করলো যে, সেখানে শিক্ষার কি অবস্থা। সে জবাব দিলো যে, এ্যাডুকেশন অনেক ভালো কিন্তু গবেষনাতে ফান্ডা নেই। এরপর সে একটি কমেন্ট করেছিলো
“বললো যে বিশ্বের প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় একই কোর্স লিটারেচার ফলো করা হয়, পার্থক্য হলো সেই লিটারেচার কিভাবে পড়ানো হয় তার উপর”

লেহনিনজারের বায়োকেমিষ্ট্রে ই পড়েই অনেক অনেক বড় বড় বিজ্ঞানী তৈরী হয়, আবার সেই একই বই পড়ে প্রাইমারী স্কুলের টিচার ও হয়।

একই কথা কুরআনের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য একই কুরআন পড়ে আলকায়েদা, তালেবান তৈরী হয়, আবার সেই কুরআনের কারনেই আরবের অন্ধকার যুগের মানুষগুলো সর্বকালের সম্মানিত মানুষে পরিনত হয়েছেন। ঠিক একই কুরাআন পড়ে মুসলিম ও ইসলাম বিরোধী কথা বলেও নিজেদের মুসলিম বলে দাবি করে।

ইংল্যান্ডে মুসলিমদের মধ্যে ইসলাম পালনের প্রবনতা দেখে সেখানকার এক পত্রিকায় বলা হয়েছিলো, মুসলিমদের শিশুদের মধ্যে অ্যারাবীক ট্রাডিশনের খাবার খাওয়া বন্ধ করতে হবে, কারন এই খাবার গুলো বাচ্চাদের মানসিকতা পরিবর্তনে ভূমিকা রাখছে।

আসলে বাস্তবতাও তাই, ইসলাম শুধু মাত্র নামাজ আর রোজা নয়, ইসলাম হলো আপনার চিন্তা, আপনার অভ্যস, আপনার ভালোলাগা, আপনার শরীরের পুষ্টি, আপনি কিভাবে সেগুলো ব্যবকার করছেন, কি ব্যবার করছেন তার উপর নির্ভর করে ব্যক্তিহিসেবে ইসলামে আপনার অবস্থান। পুষ্টিতে যদি অন্য কিছু ঢুকে যায়, আপনার চিন্তা দূষিত হতে বাধ্য, আপনার জীবন যাপন যদি ইচ্ছেমত হয় তাহলে আপনার ব্যক্তিজীবন আর মুসলিম জীবন থাকেনা।

সুতরাং নিজেকে মুসলিম হিসেবে কল্পনা করতে হলে, নিজেকে কুরাআনের আলোকে গঠন করতে হবে, কুরআন থেকে আল্লাহর নির্দেশই নিতে হবে, এবং সবটুকুই নিতে হবে।

একটি শান্তিময় মুসলিম সমাজ গঠনে কুরআন অধ্যয়নের পদ্ধতির উপর জোড় দেয়া উচিত। বুঝার ভিন্নতা, চিন্তার চিন্নতা তৈরী করে, আর এভাবে তৈরী হয় মতবাদের ভিন্নতা।

আল্লাহ আমাদের কুরআনকে কুরআনের মত করেই বুঝার তৌফিক দান করুন।

রাসুল (সাঃ) এর উপদেশ (Advice of the Prophet)

Companion of Prophet Muhammad , Khalid ibn El Waleed narrated the following:

A Bedouin came one day to the Prophet and said to him, “O, Messenger of God! I’ve come to ask you a few questions about the affairs of this life and the Hereafter. “

The Prophet responded Ask what you wish.

    • I’d like to be the most learned of men.
    • Fear God, and you will be the most learned of men.
    • I wish to be the richest man in the world.
    • Be contented, and you will be the richest man in the world.
    • I’d like to be the most just man.
    • Desire for others what you desire for yourself, and you will be the most just of men.
    • I want to be the best of men.
    • Do good to others and you will be the best of men.
    • I wish to be the most favored by God.
    • Engage much in God’s praise, and you will be most favored by Him.
    • I’d like to complete my faith.
    • If you have good manners you will complete your faith.
    • I wish to be among those who do good.
    • Adore God as if you see Him. If you don’t see Him, Know that He sees you. In this way you will be among those who do good.
    • I wish to be obedient to God.
    • If you observe God’s commands you will be obedient.
    • I’d like to be free from all sins.
    • Bathe yourself from impurity and you will be free from all sins.
    • I’d like to be raised on the Day of Judgment in the light.
    • Don’t wrong yourself or any other creature, and you will be raised on the Day of Judgment in the light.
    • I’d like God to bestow His mercy on me.
    • If you have mercy on yourself and on others, God will grant you mercy on the Day of Judgment.
    • I’d like my sins to be very few.
    • If you seek the forgiveness of God as much as you can, your sins will be very few.

       

    • I’d like to be the most honorable man.
    • If you do not complain to any fellow creature, you will be the most honorable of men.
    • I’d like to be the strongest of men.
    • If you put your trust in God, you will be the strongest of men.
    • I’d like to enlarge my provision.
    • If you keep yourself pure, God will enlarge your provision.
    • I’d like to be loved by God and His messenger.
    • If you love what God and His messenger love, you will be among their beloved ones.
    • I wish to be safe from God’s wrath on the Day of Judgment.
    • If you do not lose your temper with any of your fellow creatures, you will be safe from the wrath of God on the Day of Judgment.
    • I’d like my prayers to be responded.
    • If you avoid forbidden actions your prayers will be responded.
    • I’d like God not to disgrace me on the Day of Judgment.
    • If you guard your chastity, God will not disgrace you on the Day of Judgment.
    • I’d like God to provide me with a protective covering on the Day of Judgment. 
    • Do not uncover your fellow peoples faults, and God will provide you with a covering protection on the Day of Judgment.
    • What will SAVE me from sins? 
    • Tears, humility and illness.
    • What are the best deeds in the eyes of God? 
    • Gentle manners, modesty and patience.
    • What are the worst evils in the eyes of God? 
    • Hot temper and miserliness.
    • What alleviates the wrath of God in this life and in the Hereafter?
    • Concealed CHARITY and kindness to relatives.
  • What extinguishes hell’s fires on the Day of Judgment?
  • Patience in adversity and misfortunes.

Imam El Mustaghfiri said: “I have never heard a tradition more comprehensive of the beauties of religion, and more beneficial than this hadith. It collects all the good things of Islam but not put to use.” (Related by Imam Ibn Hambal)