সমাজ সংষ্কারে স্কুলের ভূমিকা

পরিবার যদি হয় একটি বীজ উতপাদন কেন্দ্র, স্কুল হলো নার্সারী, শিক্ষকরা হলেন এর মালী। ক্ষেত ভালো হলে বীজ ভালো হয়, আর সেই বীজ যদি ভালো কোন মালীর নার্সারীতে যায় তাহলে সেখান থেকে ভালো চারা উতপন্ন সম্ভব এবং সেখান থেকে ভালো ফল/ফসল পাওয়া সম্ভব। ক্ষেতে আগাছা থাকলে বীজ বিশুদ্ধ হয় না। তেমনি বীজ যদি ভালো না হয় চারা গাছও ভালো হয়না। পোকায় ধরে, অনেক রকম রোগে আক্রান্ত হয়।

উন্নত বিশ্বের শিশুরা স্কুলের দ্বারা বেশি প্রভাবিত হয়। স্কুলের বাচ্চাদের এমন কিছু নেই যে শিক্ষা দেয়া হয় না। প্রতোযোগিতাপূর্ণ ভোগবাদী সমাজে বাচ্চাদের বেশি সময় দিতে না পারার দরুন স্কুলের শিক্ষক/শিক্ষিকা কিংবা পরিবেশ যেমন হয় বাচ্চারা সেভাবে বড় হয়ে উঠে।

এসব স্কুলে বাচ্চাদের পাঠিয়ে আপনি যদি নিশ্চিন্তে থাকেন, তাহলে দেরিতে হলেও বুঝতে পারবেন আপনার বাচ্চা আপনার মত হয়নি বাচ্চা হয়েছে সেই রাষ্ট্রের সেই সমাজের চাহিদার মত। আপনি যদি মুসলিম হন যদি নিজের বাচ্চাকে নিজেদের মত আধো-বাংগালী এবং আধো মুসলিম দেখতে চান বাচ্চা ১৮ পেরুলেই বুঝতে পারবেন কোথায় যেন সমস্যা হয়েছে, বুঝতে পারবেন আপনিতো এমনটি চান নি কিন্তু কিছু করার থাকবেনা কারন আপনি এমন এক সমাজে বাস করছেন সেখানে আপনার নিজের বাচ্চাও আপনার না মানে সে রাষ্ট্রের সম্পদ। রাষ্ট্র চাইবে তার সম্পদকে রাষ্ট্রের আদর্শের মত করতে। কিন্তু আপনার আদর্শ যদি আপনার সমাজ যদি ভিন্ন হয় তাহলে আপনাকে চিন্তা করতে শুরুতেই, দিতে হবে অ্যান্টিবায়োটিক। আপনি আপনার বাচ্চাকে বকা দিলে স্কুলের শিক্ষক ঠিকই বুঝে নেয় কিন্তু স্কুলে কি খাওয়াচ্ছে বাচ্চাদের সেটি যদি আপনি চিন্তা করেন এই ভেবে যে সুইডেন বা কানাডা বা অ্যামেরিকার স্কুলে পড়ছে চিন্তার কি তাহলে ভূল করবেন।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে শিশুদের উপর পরিবারের প্রভাব এখনও যথেষ্ট বিদ্যমান। তবে বাংলাদেশের সমাজ ব্যবস্থার পরিবর্তন এবং সংষ্কারে স্কুল কলেজ গুলো অগ্রনী ভূমিকা পালন করতে পারে। স্কুল কলেজ গুলিতে রাষ্ট্রের আর্দশের আদলে শিশুদের বড় করে তুললে পরিবর্তীতে সমাজে দ্বন্দ্ব এবং বিরোধের সম্ভাবনা অনেকাংশে কমে যায়। আপনার স্কুলের পরিবেশ কি রকম সেটিই বলে দিবে আপনার স্কুল নামের নার্সারীর চারা গাছগুলো কেমন হবে। সুতরাং যদি সমাজকে পরিবর্তন করতে হয়, যদি মানুষের চিন্তাকে পরিশুদ্ধ করতে হয়, তাহলে রাষ্ট্রের পাশাপাশি মালী স্বরূপ শিক্ষক সমাজের ভূমিকা অপরিসীম। কিছু দ্বায়িত্ব নিজ থেকে পালন করতে হয়। মালী রুপী শিক্ষক সমাজ বাংলাদেশ নামক ভূ–খন্ড টিকে সোনার ছেলে নামক চারাগাছের নার্সারীতে পরিনত করতে অগ্রনী ভূমিকা রাখুক সেই কামনায়।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s